আজকের বার্তা | logo

৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

সরকারি জমিতে অবৈধ ইটভাটা : সর্বনাশ ঘটছে হাজারো মানুষের

প্রকাশিত : জানুয়ারি ১৪, ২০১৮, ০১:১৯

সরকারি জমিতে অবৈধ ইটভাটা : সর্বনাশ ঘটছে হাজারো মানুষের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাকেরগঞ্জ উপজেলায় সরকারি খাস জমিতে অনুমোদনহীন ইটভাটা স্থাপন করেছেন কবাই ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জব্বার সিকদার। দুই বছর আগে প্রশাসনের কোন প্রকার অনুমতি ছাড়াই জনবসতি ও শিাপ্রতিষ্ঠান এলাকার মধ্যে ওই ইটভাটা স্থাপন করা হয়। এর ফলে পরিবেশ দূষণ হলেও মতাসীন দলের নেতা হওয়ায় প্রকাশ্যে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেন না। জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও রহস্যজনক কারণে এর কোন প্রতিকার হচ্ছে না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা জানান, ইউনিয়নের শিয়ালগুলি গ্রাম সংলগ্ন কারখানা নদীর তীরে ৮/১০ একর সরকারি খাসজমি রয়েছে। ভূমিহীনরা ওই জমি একবছরের জন্য বন্দোবস্ত নিয়ে কুড়ে ঘর তুলে থাকতো এবং চাষাবাদ করতো। আ’লীগ নেতা জব্বার সিকদার তার কতিপয় আত্মীয়-স্বজনের নামে জমি বন্দোবস্ত নিয়ে ও অন্যান্য ভূমিহীনদের বন্দোবস্ত দেয়া জমি ১০ বছরের জন্য ইজারা নিয়ে সেখানে দুই বছর আগে “জেই ব্রিকস” নামক একটি ইটভাটা স্থাপন করেছেন। বছরে সেখানে ৫২ লাখ ইট পোড়ানো হয়। অথচ ওই ইটভাটা স্থাপনে সংশ্লিষ্ট সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর কোন অনুমোদন নেই। স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে, কারখানা নদীর চর ও খাসজমির মাটি কেটে ইটভাটার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। এর ফলে সেখানকার অর্ধশত বসতঘর, দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা দূষণের শিকার হচ্ছে। কবাই ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আঃ জব্বার বলেন, যেখানে ইটভাটা করা হয়েছে তার পুরোটাই খাসজমি। ইটভাটা স্থাপনের খবর পেয়ে তিনি দুইবার সেখানে যান এবং খাজনা প্রদানের তথ্য চেয়ে ভাটা মালিক পকে তাগাদা দিয়েছেন। কিন্তু তারা কোন যোগাযোগ করেনি। বিষয়টি তিনি উপজেলা সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) জানিয়েছেন। কবাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি বাদল সিকদার বলেন, শিয়ালঘুনি সংলগ্ন কারখানা নদীর তীরে খাসজমি রয়েছে। তবে ইটভাটা খাসজমিতে করা হয়েছে কি-না তা তিনি জানেন না। তবে ইটভাটা স্থাপনের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের সাথে কোন যোগাযোগ করেননি ভাটার মালিক ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জব্বার। শিয়ালঘুনি সালেহ নগর এবতেদায়ী মাদরাসার সভাপতি মাওলানা আব্দুর রহমান বলেন, তার বাড়ি ও মাদরাসা থেকে ইটভাটার দূরত্ব মাত্র ৫০/৬০ গজ। পাশেই শিয়ালঘুনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ইটভাটার জন্য শিার্থীদের নানা সমস্যা হচ্ছে। তবে ইটভাটা মালিক ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জব্বার সাংবাদিকদের বলেন, ‘ইটভাটা স্থাপন করেছি আমার ভাগ্নের রেকর্ডিয় জমিতে। শুকানোর জন্য ইট রাখা হয় খাস জমিতে।’ ওই ভাটার কোন অনুমোদন নেই-এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি সংবাদপত্রকে ম্যানেজের প্রস্তাব দেন। এ ব্যাপারে বরিশাল পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক আহসান হাবিব বলেন, রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ওই ইটভাটা স্থাপিত হয়েছে। পরিবেশ ধ্বংস করে সরকারি জমিতে এটি কোনভাবেই রাখা যাবে না। খোঁজ খবর নিয়ে অবৈধ ইটভাটাটি খুব শিগগিরিই ভেঙে দেবেন বলে তিনি জানান।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।