আজকের বার্তা | logo

৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাই: এক বছর পরে অস্ত্রপচার

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০৯, ২০১৮, ০২:৪১

রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাই: এক বছর পরে অস্ত্রপচার

আমতলী প্রতিনিধি ॥ অ্যাপেন্ডিস রোগীর পেটে গজ রেখে সেলাই করেছেন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান এএমএসএম সরফুজ্জামান রুবেল। এক বছর পরে রোগীর পেট থেকে অস্ত্রপচার করে গজ বের করা হয়েছে। আমতলীর গুলিশাখালী হালিমা খাতুন নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোসাঃ রোকসোনা বেগম মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন ঢাকার বিআইএইচএস জেনারেল হাসপাতালে। জানা গেছে, সহকারী শিক্ষিকা মোসাঃ রোকসোনা বেগম ২০১৬ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর অ্যাপেন্ডিস রোগে আক্রান্ত হয়ে বরিশাল নগরীর অ্যাড. হেমায়েত উদ্দিন ডায়েবেটিক ও জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। ওই দিনই শেবাচিম হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক এএমএসএম সরফুজ্জামান রুবেল ওই হাসপাতালে রোগীর অস্ত্রপচার করেন। অস্ত্রপচার শেষে পেটের ভেতর গজ রেখে চিকিৎসক সেলাই করে দেন। হাসপাতাল থেকে প্রাথমিকভাবে সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে যান রোকসোনা। কিছুদিন পরে রোকসোনা পেটে ব্যথা অনুভব করেন। গত বছর ৬ সেপ্টেম্বর প্রচ- পেটের ব্যথায় অসুস্থ হয়ে পড়লে পুনরায় বরিশালের চিকিৎসক অধ্যাপক সরফুজ্জামান রুবেলের শরণাপন্ন হন। তিনি সিটিস্ক্যান করার পরামর্শ দিয়ে ব্যবস্থাপত্র প্রদান করেন। রোগীর অভিভাবক চিকিৎসকের পরামর্শের উপর আস্থা না রেখে ওই বছর ১১ সেপ্টেম্বর ঢাকার বিআইএইচএস জেনারেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শাহানা আক্তারের শরণাপন্ন হন। চিকিৎসক রোগীর সিটিস্ক্যান করার পরামর্শ দেন। ওই হাসপাতালের রেডিওলজি অ্যান্ড ইমেজিং বিভাগের চিকিৎসক রেজওয়ানা রহিম চৌধুরী রোগী রোকসোনা বেগমের পেটের ভেতরে গজ রয়েছে বলে সিটিস্ক্যান প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন। এ প্রতিবেদন দেখে ১৪ সেপ্টেম্বর সহকারী অধ্যাপক শাহানা আকতার অস্ত্রপচার করে রোগীর পেটের ভেতর থেকে এক বছর পরে গজ বের করেন। পেটের গজ পচে অন্ত্র নষ্ট হয়ে ছিদ্র হয়ে গেছে। এ অবস্থা দেখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মেডিকেল টিম গঠন করে। মেডিকেল টিমের প্রধান অধ্যাপক এইচএমএ রউফ ও শাহানা আকতার পুনরায় অস্ত্রপচার করে কলেস্টমি (বিকল্প পায়ুপথ) তৈরি এবং অন্ত্রে অস্ত্রপচার করেন।  বর্তমানে রোগী ঢাকার ওই হাসপাতালে চিকিৎসক শাহানা আক্তারের তত্ত্বাবধায়নে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। অর্থ সঙ্কটের কারণে রোগীর অভিভাবকরা দিশেহারা। তারা ঠিকমত তার চিকিৎসা করাতে পারছেন না। হাসপাতালে রোগী রোকসোনা মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। রোগীর অভিভাবকরা চিকিৎসক অধ্যাপক সরফুজ্জামান রুবেলের শাস্তি দাবি করছেন। রোগীর স্বামী মোঃ মাহবুব উল আলম বলেন, ‘চিকিৎসক সরফুজ্জামান রুবেলের গাফিলতিতে আমার স্ত্রী এখন হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। স্ত্রীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে সর্বস্ব হারিয়েছি। আমি ওই চিকিৎসকের শাস্তি দাবি করছি।’ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান এএমএসএম সরফুজ্জামান রুবেল মুঠোফোনে (০১৮১৯২২৪৭৮৬) বলেন, ‘অপারেশন করেছি। অপারেশন করার সময় পেটের ভিতর গজ থাকতে পারে। ওই রোগীর পরিবার চাইলে চিকিৎসার সকল ব্যয়ভার বহন করা হবে।’ বরিশাল অ্যাড. হেমায়েত উদ্দিন ডায়াবেটিক ও জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মোঃ আবু জাফর  বলেন, চিকিৎসক সরফুজ্জামান রুবেল ওই রোগীর অপারেশন করেছেন কিন্তু পরবর্তীতে কি হয়েছে তা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবগত নয়।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।