আজকের বার্তা | logo

৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৩শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং

মুলাদীতে চার গ্রামে বোমা ফাটিয়ে তান্ডব

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০১, ২০১৮, ০১:২০

মুলাদীতে চার গ্রামে বোমা ফাটিয়ে তান্ডব

মুলাদী প্রতিনিধি ॥ মুলাদীতে জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে চার গ্রামে বোমা ফাটিয়ে তা-ব চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। গতকাল রবিবার সকাল ৮টায় উপজেলার বাটামারা ইউনিয়নের টুমচর গ্রামের মৃত জয়নাল হাওলাদারের পুত্র দুলাল হাওলাদার, মৃত হামেদ হাওলাদারের পুত্র আলমগীর হাওলাদার, কালকিনি উপজেলার হত্যাসহ বহু মামলার আসামি আক্তার সিকদারের নেতৃত্বে ৫০/৬০ জন সন্ত্রাসী বোমা, রামদা, লাঠি-সোঁটা, লেজা-টেঁটা নিয়ে বাটামারা ইউনিয়নের টুমচর, বাইলারচর, চিঠিরচর ও সফিপুর ইউনিয়নের উত্তর বালিয়াতলী গ্রামে তা-ব চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। এসময় নারী-শিশুসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। গত শনিবার সকালে টুমচর বাজার এলাকায় জুয়ার আসর বন্ধ করাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনার জের ধরে সন্ত্রাসীরা বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এঘটনায় শিক্ষার্থীদের  নিরাপত্তার স্বার্থে তয়কা-টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং পশ্চিম টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জানা গেছে, টুমচর গ্রামের দুলাল হাওলাদার দীর্ঘদিন ধরে টুমচর বাজার এলাকায় জুয়া খেলার আসর বসিয়ে আসছিলেন। এতে এলাকার বিভিন্ন বয়সের কিশোর-যুবকরা জুয়া খেলায় আসক্ত হয়ে পড়ে। শনিবার সকালে স্থানীয় কাদের সরদারের পুত্র ইসমাইল সরদার জুয়া খেলার প্রতিবাদ জানিয়ে দুলাল হাওলাদারকে জুয়ার আসর বন্ধ করার অনুরোধ করেন। এতে দুলাল হাওলাদার ও তার লোকজন ক্ষিপ্ত হলে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ওই সময় দুলাল হাওলাদার ও তার লোকজন ইসমাইল সরদারকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। স্থানীয়রা জানান, শনিবার রাতেই দুলাল হাওলাদার লোকজন নিয়ে তার আত্মীয় আলমগীর হাওলাদারের বাড়িতে গোপন বৈঠকে মিলিত হন। সংবাদ পেয়ে বাটামারা পুলিশ চৌকির এসআই খাইরুল ইসলাম ওই বাড়িতে গিয়ে বৈঠক প- করে দেন। কেউ কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই রবিবার সকাল ৮টায় দুলাল হাওলাদার ও আক্তার সিকদারের নেতৃত্বে ৫০/৬০জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী শনিবারের ঘটনার জের ধরে তাদের প্রতিপক্ষ টুমচর গ্রামের ইসমাইল সরদার, আব্বাস সরদার, জামাল সরদার, তৌহিদুল সরদারের বাড়িতে হামলা চালায়। সন্ত্রাসীরা বাড়ি-ঘর কুপিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করে। এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করতে সন্ত্রাসীরা বোমা ফাটায় বলে অভিযোগ রয়েছে। এসময় হামলাকারীরা ইসমাইল সরদারের আত্মীয় কালকিনি উপজেলার উত্তর আ-ারচর গ্রামের মৃত হোসেন আলী ফকিরের পুত্র জাহিদুল ফকিরকে কুপিয়ে পায়ের রগ কেটে হত্যার চেষ্টা চালায়। পুলিশ ও স্থানীয়রা জাহিদুলকে মারাত্মক আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন। পরে হামলাকারীরা ওই ইউনিয়নের বাইলারচর গ্রামের মজিবর বালী, সোহেল বালীর বাড়িতে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। সকাল ৯টার দিকে দুলাল হাওলাদারের সহযোগী চাঞ্চল্যকর আনিচ ও রিপন হত্যা মামলার আসামি আলমগীর কবিরাজ, বাবু সরদার, মিন্টু সরদার, মিন্টু হাওলাদার, সবুজ সরদারের নেতৃত্বে আরেক দল সন্ত্রাসী চিঠিরচর এবং উত্তর বালিয়াতলী গ্রামের মৃত আব্দুল মোতালেব হাওলাদারের পুত্র আলমগীর হাওলাদার ও দাদন হাওলাদারের বাড়ি, ইউপি সদস্য এমদাদুল হক ফকিরের বাড়িতে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। হামলাকারীদের বাধা দিতে গিয়ে সাথী আক্তার, বিলকিস বেগমসহ কমপক্ষে ২০জন আহত হন। সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাকির হোসেন, মুলাদী থানার ওসি মোঃ মতিউর রহমান, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সাইদ আহমেদ তালুকদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বাটামারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ শহীদুল ইসলাম জানান, রবিবার সকাল ৮টা থেকে সন্ত্রাসীরা বেশ কয়েকটি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করেছে। এসময় হামলাকারীরা বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। সফিপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবু মুছা হিমু মুন্সী জানান, সন্ত্রাসীরা শতাধিক বোমা ফাটিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি এবং বেশ কয়েকটি বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। মুলাদী থানার ওসি মোঃ মতিউর রহমান হামলার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থলে বোমা বিস্ফোরণের কোন আলামত পাওয়া যায়নি।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।