আজকের বার্তা | logo

৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

ভোলা ও পটুয়াখালীতে আ’লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ: আহত-১২

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০৭, ২০১৮, ০২:২১

ভোলা ও পটুয়াখালীতে আ’লীগ-বিএনপির সংঘর্ষ: আহত-১২

 

বার্তা ডেস্ক ॥ ভোলায় সিনেট নির্বাচনকে ঘিরে আ’লীগ-বিএনপির দু’গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে। একই ধরনের ঘটনা ঘটেছে পটুয়াখালীতে। ভোলা: সারা দেশের মতো ভোলা সরকারি কলেজে শনিবার ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্রাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন-২০১৭’  অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ  ভোটকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, সংঘর্ষ, ভাংচুর হয়েছে। এ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১২ জন আহত হয়েছেন। আহতরা ভোলা সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। এ সময় প্রথম আলোর ভোলা প্রতিনিধিকে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গেলে লাঞ্ছিত করে ক্যামেরা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে হামলাকারীরা। ভোলা সরকারি কলেজের অধ্য পারভীন আখতার বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটে ২৫ জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয় ৬, ১৩ ও ২০ জানুয়ারি। সে অনুযায়ী ভোলা জেলায় শনিবার ভোলা সরকারি কলেজে শান্তিপূর্ণভাবে ১০টা-১টা পর্যন্ত ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোলায় ভোটারের সংখ্যা ছিল ২৬১ জন। ভোট চলাকালীন জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সংগঠনের

নেতৃবৃন্দ জমায়েত হন। বেলা ১১টার দিকে ভোটকেন্দ্রের বাইরে কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্রদল শৃংখলা ভেঙে মিছিল করে। এ ঘটনার পরপরই বেলা ১২টার দিকে আ’লীগের নেতৃবৃন্দ আসতে শুরু করেন। ছাত্রদলের আধিপত্য বিস্তার দেখে ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগ একই ক্যাম্পাসে বিােভ শুরু করলে দুই পরে মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, সংঘর্ষ ও ভাংচুর হয়। এ সময় কলেজের বেশ কিছু চেয়ার, বেঞ্চসহ আসবাব ভেঙে ফেলে হামলাকারীরা। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। প্রত্যদর্শীরা জানান, সংঘর্ষ চলাকালে সাংবাদিকরা ছবি তুলতে গেলে হামলাকারীরা প্রথম আলোর ভোলা প্রতিনিধি নেয়ামত উল্যাহকে লাঞ্ছিত করে ক্যামেরা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। এবং কয়েকজন ছাত্রের মুঠোফোন ভেঙে ফেলে। এসময় রূপালী ব্যাংকের চালকসহ মোট ১২জন আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম নবী আলমগীর ও কেন্দ্রীয় জাতীয় কমিটির সদস্য হায়দার আলী লেলিন বলেন, তাঁরা শান্তিপূর্ণ মিছিল করেছিলেন। কিন্তু স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মীরা এসে হামলা, ভাংচুর করেছেন। এতে তাঁদের কলেজ ছাত্রদলের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম-আহবায়ক নুর মোহাম্মদসহ ১০ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান মো. ইউনুস বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্রাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক। বিএনপি-ছাত্রদল সেটিকে রাজনৈতিক রং লাগানোর জন্য কলেজ ক্যাম্পাসের পরিবেশ নষ্ট করে মিছিল করেছে। আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করে কলেজ ক্যাম্পাসে হামলা-ভাংচুর করেছে। জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক আবু সায়েম বলেন, কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য সাদ্দাম চিশতীর হাতে ছাত্রদল সন্ত্রাসীরা আঘাত করার পরে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। ভোলা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবির বলেন, সংঘর্ষের পর সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থতি শান্ত রয়েছে।

পটুয়াখালী : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনে পটুয়াখালীতে ভোট গ্রহণের সময় বিএনপি সমর্থিত প্যানেলের নির্বাচনী কাম্পে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ক্যাম্পের থাকা চেয়ার টেবিলসহ নির্বাচনী প্রচারপত্র ও ব্যানার নিয়ে যাওয়া হয়েছে। মারধর করা হয় জেলা ছাত্রদলের সভাপতিসহ বেশ কয়েকজনকে। গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় পটুয়াখালী সরকারী কলেজে এ ঘটনা ঘটে। হামলার শিকার জেলা ছাত্রদলের সভাপতি গাজী আসফাকুর রহমান বিপ্লব জানান, নির্বাচন চলাকলীন ছাত্রলীগ ও মতাসীন দলের নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে বিএনপি সমর্থিত প্যানেলের নির্বাচনী কাম্পে হামলা চালায়। এসময় হামলাকারীরা বিএনপির সমর্থক মো. আফজাল উকিলকে (৫৫) পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়। আহত করা হয় রুবেল ও রাকিব নামে দুই ছাত্রদলের কর্মীরকে। উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতি দেখে উপস্থিত পুলিশের পিকআপে আশ্রয় নেয় জেলা ছাত্রদলের সভাপতি বিপ্লব গাজী। এ সময় ক্যাম্পের থাকা চেয়ার টেবিলসহ নির্বাচনী প্রচারপত্র ও ব্যানার নিয়ে যায় হামলাকারীরা। জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবুর রহমান টোটন জানান, আজকের হামলার ঘটনায় আমরা বিভ্রত হয়েছি। এটা আশা করিনি। তবে পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. হাসান সিকদার হামলার বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম। কিছুণ পরে দেখি পটুয়াখালী জেলা বিএনপির বিবাদমান দুই গ্রুপের সাথে সংর্ঘষ বাধে। এতে ছাত্রলীগের কি দোষ। পটুয়াখালী সরকারী কলেজের অধ্য প্রফেসর জয়দেব সজ্জন জানান, আমার কাছে তারা ভেনু চেয়েছে। আমি সেই টুকু সহযোগিতা করেছি। হামলার ঘটনা ক্যাম্পাসের বাহিরে হয়েছে। আমি ঘটনা শুনে পুলিশকে অবহিত করেছি মাত্র । এরপরে আমি কিছু জানিনা। পটুয়াখালী সদর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান, কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। তা কলেজের বাহিরে। পুলিশের উপস্থিতিতে কোন প্রকার ঘটনা ঘটেনি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ছিল এবং সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন হয়েছে।

ঝালকাঠি : উৎসবমুখর পরিবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট গ্রাজুয়েট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলার ৩১৪ জন ভোটারের মধ্যে ২০২ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ঝালকাঠি সরকারি কলেজে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ রেজিস্ট্রার একেএম আমজাদ হোসেন। নির্বাচনে গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ ও জাতীয়তাবাদী ঐক্য পরিষদ ২ টি প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। নির্বাচনে এজেন্ট ছিলেন জাতীয়তাবাদী ঐক্য পরিষদ প্যানেলের অ্যাড. মোঃ কামরুল ইসলাম ও অ্যাড. শাহাদাত হোসেন এবং গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ প্যানেলের অ্যাড. বিভূতি ভূষণ রায়। নির্বাচনে প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালনকারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ রেজিস্ট্রার একেএম আমজাদ হোসেন জানান, কোন রকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। ঝালকাঠির এ কেন্দ্রে ৩১৪ জন ভোটারের মধ্যে ২০২ জন তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

আগৈলঝাড়া : অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে আগৈলঝাড়া শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সরকারি ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার্ড গ্রাজুয়েট প্রতিনিধিদের (সিনেট) নির্বাচন গতকাল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার ও নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুল কুদ্দুস ভূঁইয়া জানান, সকাল ১০টা থেকে বিরতিহীনভাবে দুপুর ১টা পর্যন্ত পুলিশি নিরাপত্তার মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৫৯ জন ভোটারের মধ্যে ২০১ জন ভোটার তাদের সিনেট নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ভোটগ্রহণে পোলিং অফিসারের দায়িত্বে ছিলেন ঢাবি’র সহকারী রেজিস্ট্রার শাহীন মোল্লা।

বরিশাল: এদিকে বরিশাল মেডিকেল কলেজ কেন্দ্রে ঢাবি’র সিনেট নির্বাচন উপলক্ষে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির নেতা কর্মীরা ব্যাপক তৎপরতা দেখান। সকাল থেকে সেখানে দুই দলের ব্যাপক প্রস্ততি দেখা গেছে। শীর্ষ নেতারাও কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।