আজকের বার্তা | logo

৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

পুলিশে এখনো বিএনপি জামায়াতের কালো ছায়া!

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০২, ২০১৮, ১০:০৭

পুলিশে এখনো বিএনপি জামায়াতের কালো ছায়া!

অনলাইন ডেক্সঃ নির্বাচনকে সামনে রেখে পুলিশ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদে এবং বিভিন্ন থানার ওসিদের (ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) নিয়ে এখন সংশয় তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াত সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন বিভিন্ন মেয়াদে যারা নিয়োগ পেয়েছিলেন এমন ৯৫ জন পরিদর্শককে নিয়ে গোপন প্রতিবেদন তৈরি করেছে একাধিক সংস্থা। এরই মধ্যে তা জমা হয়েছে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে। প্রতিবেদনে তাদের শিক্ষাজীবন, রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা-মতাদর্শ এবং তাদের আত্মীয়স্বজনের কর্মকাণ্ডের তালিকা সবিস্তারে বর্ণনা করা হয়েছে। গোয়েন্দা প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে, ওই কর্মকর্তাদের অনেকে নিজেদের আড়াল করে বর্তমানে অতিমাত্রায় আওয়ামী লীগ সেজেছেন। সময়মতো এসব কর্মকর্তা তাদের খোলস বদলে আগের ভূমিকায় ফিরে যেতে পারেন। যা সরকারের জন্য মারাত্মক হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তাদের বেশিরভাগই ১৯৯১ থেকে ১৯৯৬ এবং ২০০১ থেকে ২০০৬ সালের মধ্যে নিয়োগ পেয়েছেন। প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, তালিকায় নাম আসা কর্মকর্তাদের অনেকেই ছাত্রদল এবং ছাত্রশিবির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তারা এখনো গোপনে বিএনপি-জামায়াতকে সহায়তা করে যাচ্ছেন। তাদের অনেকের আত্মীয়-স্বজন বর্তমানেও বিএনপি-জামায়াতের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন।

তালিকার বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দপ্তরের গুরুত্বপদে আসীন এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, যাদের নাম তালিকায় এসেছে তাদের ব্যাপারে আরো খোঁজ খবর নেয়া হবে। সে অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তালিকায় যাদের নাম: ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান থানার ওসি মো. আবু বক্কর সিদ্দিক, ছাত্রদল নেতা হিসেবে পুলিশ বিভাগে নিয়োগ পেয়েছিলেন। তার বাড়ি সিরাজগঞ্জ। বিএনপি সরকারের সময় তিনি মিরপুর থানার সিভিল টিম পরিচালনা করতেন। ডিএমপির তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার ওসি মো. আব্দুর রশিদ, বাড়ি চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায়। ১৯৯৩ সালে তিনি নিয়োগ পেয়েছিলন ছাত্রদল নেতা হিসেবে। শ্যামপুর থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বিএনপি নেত্রী হেলেন জেরিন খানের বোন জামাই। শাহ আলী থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন, যাত্রাবাড়ী থানার ওসি মো. আনিসুর রহমান, ধানমন্ডি থানার ওসি আব্দুল লতিফ, উত্তরা পূর্ব থানার ওসি নুরে আলম সিদ্দিকী, আদাবর থানার ওসি শেখ শাহিনুর রহমান ছাত্রদল নেতা হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন। উত্তর খান থানার ওসি হেলালউদ্দিন মির্জা আব্বাসের ছোটভাই মির্জা খোকনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু, সবুজবাগ থানার ওসি আব্দুল কুদ্দুস ফকির বিএনপি নেতা চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের আশীর্বাদপুষ্ট জেলা ছাত্রদলের নেতা ছিলেন। কদমতলী থানার ওসি আব্দুল জলিল মাগুরা জেলা ছাত্রদল নেতা ছিলেন। হাজারীবাগ থানার ওসি মীর আলিমুজ্জামান, শ্যামপুর থানার পরিদর্শক তদন্ত এ কে এম হাবিবুল ইসলাম, বনানী থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. আব্দুল মতিনের নিয়োগও ছাত্রদল নেতা হিসেবে। আব্দুল মতিন নওগাঁ কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি ছিলেন। মতিঝিল থানার পরিদর্শক তদন্ত গোলাম রব্বানী, দক্ষিণখান থানার পরিদর্শক তদন্ত রুকনুজ্জামানের নিয়োগ ছিলো শিবির নেতা হিসেবে। শেরেবাংলা নগর থানার পরিদর্শক তদন্ত সোহরাব আল হোসাইন, নরসিংদী সদর থানার ওসি গোলাম মোস্তফা, জয়দেবপুর থানার ওসি মো. আমিনুল ইসলাম, পরিদর্শক তদন্ত মো. মাহমুদের নিয়োগের ক্ষেত্রে বিশেষ অনুঘটকের ভূমিকা রাখে ছাত্রদলের তত্কালীন নেতা। ওসি আমিনুল ইসলাম বর্তমানে গাজীপুরের এক আওয়ামী লীগ নেতার মেয়ের জামাই।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) কোতয়ালী থানার ওসি মো. জসিমউদ্দিন, হালীশহরের ওসি মাহফুজুর রহমান, আকবরশাহ্ থানার ওসি মো. আলমগীর, ইপিজেডের ওসি সৈয়দ মো. আহসানুল ইসলাম, পাহাড়তলীর ওসি মো. আলমগীর হোসেন, চান্দগাঁও ওসি মো. আবুল বাশার, সদরঘাট থানার ওসি মর্জিনা আক্তার মর্জু নিয়োগ পেয়েছিলেন ছাত্রদল নেতা হিসেবে। বায়েজিদ থানার ওসি মো. আবুল কালাম, কর্ণফুলীর ওসি রফিকুল ইসলাম, বন্দরের ওসি রফিকউল্লাহ নোয়াখালী সদরের ওসি সামাদ সরাসরি শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। আনোয়ারা থানার ওসি দুলাল মাহমুদ সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীরকে নির্যাতনকারী এবং বিএনপির সাবেক মন্ত্রী এহসানুল হক মিলনের ক্যাডার। সেনবাগ থানার ওসি হারুন, পেকুয়ার ওসি জহিরুল, চকরিয়ার ওসি বকতিয়ার চৌধুরী, রামুর ওসি লিয়াকত আলী শিকদার, উখিয়ার ওসি আবুল খায়ের, কুমিল্লা দাউদকান্দির ওসি মিজানুর রহমান, মুরাদনগরের ওসি মো. বদিউজ্জামান, চান্দিনার ওসি নাসির মৃধা, দেবিদ্বারের ওসি মিজানুর রহমান, চৌদ্দগ্রামের ওসি আবু ফয়সল, কুমিল্লার ওসি (ডিবি) এ কে এম মঞ্জুরুল আলম ছাত্রদল রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। মঞ্জুরুল আগে চট্টগ্রামে চাকরিরত অবস্থায় ইয়াবা পাচারকারী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। বুড়িচং থানার ওসি শাহজাহান কামাল, জোরারগঞ্জের ওসি জাহিদুর কবির, মিরসরাইয়ের ওসি সাইরুল ইসলাম, রাউজানের ওসি কেফায়েত উল্লাহ ফটিকছড়ির ওসি আবু ইউসুফ মিয়া, ফেনী সদর থানার ওসি রাশেদ চৌধুরী, হাতিয়ার ওসি কামরুজ্জামান, পটিয়ার ওসি শেখ মো. নিয়ামউল্লাহ, বাঁশখালী থানার ওসি আলমগীর হোসেন, ঠাকুরগাঁও হরিপুর থানার ওসি রুহুল কুদ্দুস, রংপুর মিঠাপুকুর থানার ওসি হুমায়ুন কবির, ঝিনাইদহ শৈলকুপা ওসি আলমগীর হোসেন, হরিনাকুণ্ডু থানার ওসি শওকত হোসেন, মহেশপুর থানার ওসি হুমায়ুন কবির, কক্সবাজার সদরের সাবেক ওসি আসলাম হোসেন, মৌলভীবাজার কমলগঞ্জ থানার ওসি বদরুল আলম, সিলেট শাহপরান থানার ওসি আকতার হোসেন, হবিগঞ্জ চুনারুঘাট থানার ওসি মো, আজমিরুজ্জামান, নবীগঞ্জ থানার ওসি আতাউর রহমান সরাসরি ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার থানার ওসি মো. এনামুল হক, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ইফতেখার উদ্দিন, দিরাই থানার ওসি মোস্তফা কামাল, সিলেট জৈয়ন্তাপুর থানার ওসি মাইনুল জাকির, যশোর অভয়নগরের ওসি মো. আনিস, গোপালগঞ্জ সদরের ওসি মো. সেলিম, বরগুনা সদরের মো. মকসুদুজ্জামান, বরগুনা আমতলীর শহিদুল ইসলাম, পাথরঘাটার জিয়াউল হক, ঝালকাঠী নলছিটির সুলতান মাহমুদ, রাজাপুর থানার ওসি মনিরুর পিয়াস, পটুয়াখালী লাইন ওয়ার শামছুল আরেফিন, বাউফলের ওসি মো. আজম ফারুকী, বরিশাল বানারীপারার সাজ্জাদ হোসেন, গৌরনদীর মনিরুল ইসলাম, বাবুগঞ্জের আব্দুস সালাম, মুলাদীর আতিয়ার রহমান, মেহেন্দীগঞ্জের আকতরুজ্জামান ও বাকেরগঞ্জ থানার ওসি মো. আজিজুর রহমান ছাত্রজীবনে ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

ভোলা সদর থানার ওসি খাইরুল হক, লালমোহন থানার ওসি হুমায়ুন কবির, দক্ষিণ আইচার ওসি হানিফ শিকদার, বিএমপি কাউনিয়া থানার ওসি নুরুল ইসলাম, বন্দর থানার মোস্তফা কামাল, রাজবাড়ী সদরের ওসি আবুল বাশার মিয়া, পাংশা থানার তোফাজ্জল হোসেন, কিশোরগঞ্জ বাজিতপুরের ওসি আবু সামা ইকবাল হায়াত, কেএমপি (খুলনা মহানগর পুলিশ) সদর ওসি মিজানুর রহমান, খালিশপুরের মো. নাসিম, ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ থানার ওসি মো. মিজান, বাগেরহাট মংলা থানার ওসি ইকবাল বাহার, চট্টগ্রাম সাতকানীয়ার ওসি রফিকুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ রূপগঞ্জ থানার ওসি ইসমাইল হোসেন, আড়াইহাজার থানার ওসি আব্দুল হক, নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ওসি শাহেন শাহ পারভেজ, গাজীপুরের টঙ্গী থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার, ময়মনসিংহ সদর থানার ওসি মাহমুদ ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ওসি ইসমাইল নরসিংদী সরকারি কলেজ ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক, ওসি মাহমুদ জামালপুর আশিক মাহমুদ কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি ছিলেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।