আজকের বার্তা | logo

৬ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২০শে জুন, ২০১৮ ইং

তীব্র শীতে থমকে গেছে বরিশালের জীবনযাত্রা

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০৯, ২০১৮, ০২:০২

তীব্র শীতে থমকে গেছে বরিশালের জীবনযাত্রা

বার্তা ডেস্ক ॥ মৃদু শৈত্যপ্রবাহের কারণে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। আর এতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বরিশাল নগরীসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলের জনজীবন। এছাড়া তীব্র শীতে কদর বেড়েছে গরম কাপড়ের। আমাদের স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- স্টাফ রিপোর্টার : বরিশালসহ দণিাঞ্চলে তাপমাত্রা ক্রমশ কমছে। সেই সঙ্গে বৃদ্ধি পাচ্ছে বাতাস। ফলে তীব্র শীতে কাবু হয়ে পড়েছে দণিাঞ্চলের জনজীবন। আবহাওয়া অফিস গতকাল সোমবার জানিয়েছে, এ অঞ্চলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বইছে। বরিশাল আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র পর্যবেক মো. আনিসুজ্জামান জানান, রোববার রাত থেকে তাপমাত্রা কমতে কমতে গতকাল সোমবার সকাল ৯টার দিকে ৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসে। এটা ছিল চলতি মৌসুমে বরিশালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। মৃদু শৈত্যপ্রবাহের কারণে এ অবস্থার ক্রমশই অবনতি ঘটছে। গত বছর ১৪ জানুয়ারি সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া গত দুই দিনের তুলনায় গতকাল বাতাসও বৃদ্ধি পেতে থাকে। গতকাল বাতাসের প্রবাহ ৯ থেকে ১১ কিলোমিটারের মধ্যে ওঠানামা করে। এদিকে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় এবং বাতাসের কারণে গতকাল সোমবার শীতের তীব্রতা আরো বেড়েছে। শীতে কাবু লোকজন প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হচ্ছে না। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চরম দুর্ভোগে পড়েছেন, নগরীসহ বিভিন্ন স্থানের ছিন্নমূল মানুষ।

কাউখালী :

পিরোজপুরের কাউখালীতে শেষ পৌষের তীব্র শীতে বিপর্যস্ত জনজীবন। তাপমাত্রা কেবল নামছেই। তীব্র শীতে মানুষের স্বাভাবিক চলাফেরা বেশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সকালবেলা পানিও ছোঁয়া যায় না। ঠা-ায় হাত অবশ হয়ে যাওয়ার অবস্থা বিরাজ করছে। তীব্র শীতে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েছে ছিন্নমূল ও নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। হাটবাজারগুলোতেও সন্ধ্যার পর লোকজনের উপস্থিতি কম ল করা যাচ্ছে। হাসপাতালগুলোতে ঠা-াজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়া রোগীদের সংখ্যা বাড়ছে। যারমধ্যে শিশু ও বয়োজ্যেষ্ঠদের সংখ্যাই বেশি। যথাসময়ে সূর্যের দেখা মিললেও বেলা বাড়ার পরেও শীতের কারণে রাস্তাঘাট অনেকটা ফাঁকা থাকছে। তীব্র এ শীতে কদর বেড়েছে গরম কাপড়ের। শীত থেকে বাঁচতে কাউখালীর ফুটপাথে গরম কাপড়ের দোকানি যেমন বেড়েছে তেমনি বিক্রিও হচ্ছে বেশ। দাম একেবারে আকাশছোঁয়া। গ্রামের দরিদ্র ও নিম্নবিত্ত মানুষের কষ্টের সীমা নেই। কেবল কাঁথা জড়িয়ে ও আগুন জ্বালিয়ে এখন আর রাত কাটতে চায় না। শীত মোকাবেলার জন্য আরো কিছু চাই। একটা কম্বল হলেও চলে যেত। কিন্তু দিন এনে দিন খাওয়ার অবস্থা যাদের তাদের কম্বল কেনার সামর্থ্য হয় না বলে জানিয়েছেন তারা। সরকারিভাবে এ উপজেলায় এখনো পর্যন্ত কোনো শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত জাহান বলেন, ‘আমরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে কিছু বরাদ্দ পেয়েছি; তা দ্রুত বিতরণ করব।’ এদিকে উপজেলার রূপালী ব্যাংকের সামনে,সদর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এবং পোস্ট অফিস রোডের ফুটপাতে শীতের কাপড়ের ব্যবসা জমে উঠেছে। শীতের তীব্রতা বাড়ার সাথে সাথে গরম কাপড়ের ব্যবসাও জমে উঠছে। প্রতিবছর শীতে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির মানুষেরা ফুটপাত থেকে গরম কাপড় সংগ্রহ করে থাকে। এবার পৌষের শুরুতেই শীত আসেনি। তবে শেষদিকে এসে বাড়ছে শীতের কামড়। আর এ কারণে গরম কাপড় কেনার ধুম পড়েছে।

বানারীপাড়া :

বানারীপাড়ায় উপজেলার ৮ ইউনিয়ন ও পৌর শহরের দুস্থ শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। রোববার বেলা ১২ টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (এসিল্যান্ড) বিপুল চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সদস্য আলহাজ¦ গোলাম ফারুক। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দা তাসলিমা হোসেন ফোরা, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা অয়ন সাহা, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান আ. জলিল ঘারামী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সলিয়াবাকপুর ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াউল হক মিন্টু, বানারীপাড়া প্রেসকাব সভাপতি রাহাদ সুমন প্রমুখ।

আগৈলঝাড়া :

আগৈলঝাড়ায় দুঃস্থ ও শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতি ও আ’লীগ নেতা আশিক আব্দুল্লাহ্। রোববার বিকেলে উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের আস্কর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বরিশাল জেলা আ’লীগের নির্বাহী সদস্য আশিক আব্দুল্লাহ্ নিজ উদ্যোগে দুঃস্থ ও শীতার্ত পাঁচ শতাধিক অসহায় মানুষকে কম্বল প্রদান করেছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আস্কর মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ প্রিয়লাল মন্ডল, শিক্ষক মন্মথ নাথ বৈষ্ণব, যুবলীগ নেতা নারায়ণ বিশ্বাস, সঞ্জয় বিশ্বাস প্রমুখ। এর আগে আশিক আবদুল্লাহ উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের সেরালস্থ নিজ গ্রামের অসহায় ও শীতার্তদের মাঝে কম্বল প্রদান করেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল জেলা ছাত্রলীগ ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক শিকদার মনির হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা মো. সাগর সেরনিয়াবাত প্রমুখসহ রাজনৈতিক ও স্থানীয় সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। এদিকে জেলা পুলিশের উদ্যোগে অসহায় ও শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে থানা চত্বরে বরিশাল জেলা পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম (বিপিএম) এর তহবিল থেকে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আ. রাজ্জাক মোল্লা ৪০জন দুঃস্থকে শীতের চাদর প্রদান করেন।

দেশের ৭০ বছরের রেকর্ড ভেঙে সর্বনিম্নতাপত্রা :

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় সোমবার সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। মূলত এটিই ছিল গতকাল টক অব দি কান্ট্রি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রার এ রেকর্ড নিয়ে আলোচনা ছিল সকলের মুখে মুখে। অনেকটা অপ্রত্যাশিতভাবে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় অনেকের মনে প্রশ্ন জেগেছে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কি আরও কমে মাইনাসে যাবে? ইউরোপ ও আমেরিকাসহ উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও কি তুষারপাত হবে? আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, আপাতত তাপমাত্রা আরও হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই ীণ। তিনি জানান, আগামী বুধবার পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকলেও তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ এর নিচে নামার সম্ভাবনা নেই। তিনি জানান, ১৯৪৮ সাল থেকে আবহাওয়া অধিদপ্তরে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড রাখা হচ্ছে। সর্বশেষ ১৯৬৮ সালে শ্রীমঙ্গলে সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। সে হিসেবে আবহাওয়া অধিদপ্তরের ৭০ বছরের রেকর্ড গতকাল ভঙ্গ হয়েছে। তিনি জানান, সাধারণত রাতের বেলা ও সকালের দিকে তাপমাত্রা সর্বনিম্ন থাকে। প্রতি তিন ঘণ্টা পর পর তাপমাত্রা রেকর্ড করে আবহাওয়া অধিদপ্তরের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পাঠানো হয়। গতকাল সকালে তেঁতুলিয়ায় তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি থাকলেও দুপুরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।