আজকের বার্তা | logo

২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

জেঁকে বসা শীতে কাঁপছে উপকুলীয় জনপদ, কুয়াকাটায় কমে গেছে পর্যটক

প্রকাশিত : জানুয়ারি ০৯, ২০১৮, ১৩:৪১

জেঁকে বসা শীতে কাঁপছে উপকুলীয় জনপদ, কুয়াকাটায় কমে গেছে পর্যটক

পটুয়াখালী প্রতিনিধি- পৌষের শেষ পক্ষে এসে জেঁকে বসা তীব্র শীতে কাঁপছে পটুয়াখালীর উপকুলীয় জনপদ। হিমালয় থেকে স্থলভাগে ধেয়ে আসা হিমেল হাওয়ায় স্থবিরতা নেমে এসেছে শহর, গ্রামসহ চরাঞ্চলের জনজীবনে।

মাঘের আগেই উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে বয়ে যাওয়া হাঁড় কাঁপানো হিমেল হাওয়ার কনকনে এ শীতে ভোগান্তিেেত পড়েছে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ। শীত থেকে রক্ষায় প্রাণীকূলও খুজছে উষ্ণতা। হাসপাতাল গুলোতেও প্রতিদিন বাড়ছে শীতজনিত রোগে আক্রান্ত মানুষের ভীড়। শীতের তীব্রতায় সাগরকন্যা কুয়াকাটায় কমে গেছে পর্যটকের উপস্থিতি।

এবছর অনেকটা স্বাভাবিক নিয়মেই এসেছে শীত। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকেই মিলেছে শীতের আমেজ। শুরুতে সেভাবে শীত অনুভূত না হলেও পৌষের শেষ পক্ষে এসে জেঁকে বসেছে শীত। দুপুরের পর থেকেই ক্রমান্বয়ে কমতে থাকে তাপমাত্রা। পাল্লা দিয়ে বাড়ে শীতের তীব্রতা। গত কয়েক দিনের টানা শৈত্য প্রবাহে বেড়ে গেছে মানুষের দুর্ভোগ।

ফুটপাতের দোকানসহ বিপনী বিতান গুলোতে শীতবস্ত্র ক্রয় করতে ভিড় জমাচ্ছেন মানুষ। গরম কাপড়ের অভাবে এবং শীতের প্রকোপ থেকে সাময়িক রক্ষার জন্য খড়ের আগুনের উষ্ণতা নিচ্ছে অনেকেই।

তীব্র শীতের কারনে স্বাভাবিক কাজ-কর্ম করতে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়ছে প্রায় সবাই। বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুরা নিদারুন কষ্টে দিন যাপন করছে। স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরাসহ জীবিকার তাগিদে কর্মজীবী ও শ্রমজীবী মানুষ শীত উপেক্ষা করে বের হলেও, শীতের তীব্রতায় অশেষ কষ্ট-দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিশেষ কোনো কাজ না থাকলে ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন না মানুষ। হাসপাতাল গুলোতে প্রতিদিনই বাড়ছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। কোল্ড ডায়রিয়া, সর্দি-কাশি, জ্বর, নিউমোনিয়াসহ বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে অনেক রোগী। জেলা ও উপজেলার হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েক দিনে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরমধ্যে শিশু ও বৃদ্ধের সংখ্যাই বেশি।

এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানা গেছে, উত্তরে অবস্থিত হিমালয় পর্বত থেকে হিমশীতল বায়ুমালা প্রতিনিয়ত বাংলাদেশের দিকে ধেয়ে আসছে। একই সাথে ঊর্ধ্বাকাশের জেটবায়ু স্থলভাগের দিকে নামছে। বঙ্গোপসাগরে অস্বাভাবিক কোন চাপ না থাকায়, শৈত্য প্রবাহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এ অবস্থা আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে।

এদিকে পর্যটন মৌসুম হলেও পর্যটন নগরী কুয়কাটায় কমে গেছে পর্যটকের উপস্থিতি। হোটেল-মোটেল মালিক সমিতি সুত্র জানায়, শীতের তীব্রতা বাড়ার পর থেকে বিভিন্ন হোটেল-মোটেলের বুকিং রুমের প্রায় নব্বই ভাগ বুকিং বাতিল করা হয়েছে।

সমাজের বিত্তবানদের শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আহবান জানিয়ে কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভির রহমান জানান, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গত কয়েক দিন ধরে বিভিন্ন এলাকায় কয়েকশ’ শীতার্ত মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।