আজকের বার্তা | logo

১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৫শে মে, ২০১৮ ইং

মেয়র কামালের হঠাৎ বিএনপির বিজয় দিবসের র‌্যালীতে অংশগ্রহন কমীর্দের ক্ষোভ!

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ১৬, ২০১৭, ২২:২০

মেয়র কামালের হঠাৎ বিএনপির বিজয় দিবসের র‌্যালীতে অংশগ্রহন কমীর্দের ক্ষোভ!

বার্তা ডেক্সঃবিগত সময়ে সরকার বিরোধী আন্দোলন কিংম্বা দলীয় কোন কর্মকান্ডে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আহসান হাবিব কামালকে দেখা যায়নি। তবে হঠাৎ বিএনপির দলীয় কর্মসূচীতে অংশ গ্রহন করা নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ চলছে। নেতা কর্মীর অভিযোগ বসন্তের কোকিলের মতো এই নেতা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন এলেই বিএনপির তথা শহীদ জিয়াউর রহমানের আদর্শের আদর্শের সৈনিক হয়ে যায়।

কিন্তু দলের দুর্দিনে এই নেতাকে আন্দোলন সংগ্রামে পাওয়া যায়না। বিজয়ের ৪৬ বছরের ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭ বিজয় দিবস পালন উপলক্ষ্যে বিএনপির আয়োজিত বর্ণাঢ্য র‌্যালীতে সিটি মেয়র কামালের অংশ গ্রহন করাকে কেন্দ্র করে বরিশালের বিএনপির নেতাকর্মীরা ক্ষোভের সহিত এমন অভিযোগ করেছেন নেতাকর্মীরা। নেতাকর্মীদের ভাস্যমতে ১৯৯১ সনে বিএনপি ক্ষমতায় আসলে আহসান হাবিব কামালকে বরিশাল পৌরসভার প্রাশাসক নিয়োগ দেন। এরপর দলীয় মনোয়ন পেয়ে পৌর চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। চেয়ারম্যান হওয়ার সুবাধে আহসান হাবিব কামাল বরিশালের কোন উন্নয়ন না করলে নিজের ভাগ্যের পরিবর্তন করছেন।

অভিযোগ করেন ১৯৯৬ সনে বিএনপি ক্ষমতার পালাবদল হলে সে আলীগের সাথে আাতায়াত করে ঐ চেয়ারে থেকে যান । কিন্তু ১৯৯৬ সন থেকে ২০০১ পর্যন্ত আলীগ সরকার ক্ষমতাকালীন বিএনপির কোন কর্মকান্ডে পাওয়া যায়নি। তবে সে নিজের ভাগ্যকে পরিবর্তন করে নিজ এলাকা কালুশাহ সড়কে করেছেন আলীশান অট্টালিকা । যেখানে এই নেতা বসবাস করছে ।

এরপর আলীগ ক্ষমতার পালাবদল হয়ে বিএনপি ক্ষমতায় এলে আবার ঐ নেতা দলীয় কর্মকান্ডে অংশগ্রহন শুরু করেন। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় নেতারে আকৃস্ট করে বরিশাল মহানগর বিএনপির সভাপতি পদটি বাগিয়ে নিতে সক্ষম হন।

২০০২ সনে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন ঘোষনা হলে আহসান হাবিব কামাল ভারপ্রাপ্ত মেয়র হন। এরপর ২০০৩ সনের সিটি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ঘোষনা দেন। শেষ পর্যন্ত দলীয় মনোয়ন না পেয়ে দল থেকে বহিস্কার হয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার কাছে পরাজিত হয়ে ঐ রাতেই বরিশাল ছাড়েন।

এরপর সে আর বরিশালে আসেননি । এমনকি তারপক্ষে কাজ করা সমর্থকেরোও খোজ নেননি। এতে তার সমর্থকমদের বিএনবিতে কোনঠাসা হয়ে থাকতে হয়।

পরবর্তীতে ২০০৮ সনের তত্বাবাধায়ক সরকারের সময় বরিশাল সিটির নির্বাচনে নিজেকে বিএনবির প্রার্থী দাবী করে নির্বাচন করেন। কিন্তু কামালের ছলচতুর বুঝতে পারেন বিএনপির সমর্থকরা। ঐ সময় ব্যাপক ভোটের ব্যবধানে প্রয়াত মেয়র শওকত হোসনে হিরনের কাছে পরাজিত হয়ে পুনরায় বরিশাল ছাড়েন। এরপর আর কোন সময় বিএনপির হয়ে কাজ করেনি ।

দলীয় সূত্র থেকে জানাগেছে ২০১১ সনে কামালের বহিস্কার আদেশ প্রত্যাহার করেন বিএনপির হাইকমান্ড ।

এরপর বরিশাল মহানগর বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষনা হলে আহবায়ক হন এ্যাড.মজিবর রহমান সরোয়ার । আর যুগ্ন আহবায়ক হন কামাল ,বিলবিস জাহান শিরিন, এবায়দুল হক চাঁন সহ বেশ কয়েকজন। ঐ কমিটি ঘোষনার পরপরই বরিশাল বিএনপির মধ্যে গ্রুপিং শুরু হয়। একদিকে নেতৃত্ব দেন মজিবর রহমান সরোয়ার । আর অন্যদিকে নেতৃত্বে থাকেন চান ,কামাল ও শিরিন । আর এ গ্রুপিংকে কেন্দ্র করেত বিএনপির বিভিন্ন কর্মসূচী পৃথক ভাবে পালন করেন এ দুই গ্রুপ। এমনকি গ্রুপিংয়ে বেশ কয়েকবার রতক্তপাতের ঘটনা ঘটে। আর এতে প্রান হারায় বরিশাল কলেজের ছাত্রল নেতা জিতু।

সূত্র আরও জানান এরপর বিবেধ বেধে যায় বরিশাল কমিটি গঠন নিয়ে । মহানগর বিএরপির সভাপতি হন এড. মজিবর রহমান সরোয়ার এবং সম্পাদক হন প্রয়াত এ্যাড. কামরুল আহসান শাহিন । অপর গ্রুপে সভাপতি হন এবং আহসান হাবিব কামাল এবং সাধারন সম্পাদক হন বিলকিস জাহান শিরিন। পরে ২০১৩ সনের বরিশাল সিটি নির্বাচন তফসিল ঘোষনা হলে কামাল ও চাঁন বিএনপির দলীয় মেয়র প্রার্থী হয়ে মনোয়ন চান ।

কিন্তু দলের হাইকমান্ড কামালকে মনোয়ন দেন। আর এতে কামাল প্রয়াত মেয়র শওকত হোসেন হিরনকে পরাজিত করে বিপুল ভোটে জয়ী হন। আর ঐ নির্বাচনে কামালের পক্ষে দুই মেরুর নেতাকর্মীরা নাওয়া খাওয়া ভুলে মাঠে কাজ করেন।

নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন আহসান হাবিব কামাল মেয়র হওয়ার পর পুরো পাল্টেযান। কোন বিষয় দলীয় কর্মীরা তার কাছে গেলে অস্বাভাবীক আচারন ছাড়া আর কিছু পায়নি। কামাল বিএনপির মেয়র হয়ে সে ও তার পুত্র কামরুল আহসান রুপম নিজেরে আখের খুচেয়েছেন। সেই সাথে বিএনপির হয়ে আলীগের দলীয় কর্মকান্ড ছাড়া আর কিছু করেনি।

আজ ১৬ ডিসেম্বর বিএনপির র‌্যালীতে মেয়র কামালের হঠাৎ অংশ গ্রহন দেখে নেতা কর্মীরা ক্ষুদ্ব হয়ে বলেন আগামী সিটি নির্বাচনে আসছে । তাই সে আবারও বিএনপির মনোয়ন পেতে দলীয় কর্মসূচীতে অংশ গ্রহন করছেন। বিগত সরকার বিরোধী আন্দোলনে কোন ধরনের দায়িত্ব পালন না করলে মেয়র হয়ে আখের ঘুচাতে এমনই অভিনয়ে মাঠে নেমেছেন। আবার জয়ী হয়ে অন্যদলের হয়ে কাজ করবেন এমনটাই নেতাকর্মীরা মনে করছেন ।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।