আজকের বার্তা | logo

১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৬শে মে, ২০১৮ ইং

ভোলায় ফের অপচিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২০, ২০১৭, ০১:৫৫

ভোলায় ফের অপচিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু

এম হেলাল উদ্দিন, ভোলা প্রতিনিধি ॥ ভোলায় অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসক ডা. জেসি রায়ের অপারেশনে জান্নাত (২২) নামের এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। নিহত জান্নাত সদর উপজেলার ভেদুরিয়া ইউনিয়নের ব্যাংকের হাট এলাকার রাজমিস্ত্রী মো. আব্দুল্লাহর স্ত্রী ও ভোলা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচ্ছন্নকর্মী। সোমবার রাতে শহরের মেঘনা হেলথ কেয়ার সেন্টারে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের স্বামী আব্দুল্লাহ জানান, গত ছয় মাস ধরে জান্নাত অ্যাপেন্ডিস রোগে আক্রান্ত ছিলেন। সোমবার ভোলা সদর হাসপাতালে সিভিল সার্জন ডা. রথিন্দ্রনাথ মজুমদারকে দেখালে তিনি দ্রুত অপারেশন করাতে বলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রথিন্দ্রনাথ মজুমদার ডাক্তার জেসি রায়ের কাছে জান্নাতকে অপারেশনের জন্য পাঠান। সে অনুযায়ী জান্নাতের পরিবারের লোকজন তাকে শহরের মেঘনা হেলথ কেয়ারে নিয়ে আসে। রাত ৮টার দিকে ডাক্তার জেসি রায় ও ভোলা সদর হাসপাতালের অ্যানেসথেসিস্ট ডা. কায়সারসহ জান্নাতের অপারেশন শুরু করেন। রাত সাড়ে ৮টার দিকে অপারেশন সম্পন্ন হয়। কিন্তু অপারেশনের পরে কয়েকবার বমি হয় জান্নাতের। বমি করতে করতে তিনি মারা যান। ডাক্তার জেসি রায় এর আগেও ভোলার বিভিন্ন কিনিকে অপারেশন করতে গিয়ে বেশ কয়েকজন রোগীর মৃত্যু হয়। ডা. জেসি রায় একজন অবসরপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার হয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বড় বড় অপারেশন করেন কিভাবে সে নিয়েও মানুষের মনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে ভোলার সতেচন নাগরিকগণ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যে ডাক্তারকে সরকার অবসরে পাঠিয়েছে তাকে দিয়ে ভোলার বিভিন্ন কিনিকগুলো অধিক মুনাফার জন্য মানুষের জীবন নিয়ে তামাশা করছে। মানুষ মারা গেলে তো আর কিনিক ব্যবসায়ীদের কিছু যায় আসে না। এ ব্যাপারগুলো প্রশাসনের নজর দেয়া উচিত। ডা. জেসি রায় বলেন, ‘আমার কাছে সিভিল সার্জন ডা. রথিন্দ্রনাথ মজুমদার জান্নাতের অ্যাপেন্ডিসাইটিস অপারেশনের জন্য পাঠান। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তিনি আমাকে ফোন করে জান্নাতের অপারেশনের কথা বলেন। আমি তার কথা অনুসারে ডা. কায়সারকে নিয়ে অপারেশন করি। অপারেশন ভালোভাবে সম্পন্ন হয়েছে। পরে রোগীর হার্টফেল হয়ে হার্টে পানি চলে আসায় তিনি মারা যান। এখানে আমার কোনো দোষ নাই। এটা ওষুধের রিঅ্যাকশনের কারণে হয়েছে। ভোলার সিভিল সার্জন ডা. রথিন্দ্রনাথ মজুমদার ডা. জে. সি.  রায়ের পক্ষে ছাফাই গেয়ে বলেন, ‘ডাক্তারদের কোনো অবসর নাই, তাদের মৃত্যুর পর অবসর। মৃত্যু পর্যন্ত তার চিকিৎসা করতে পারেন। আর আমি মেডিসিনের ডাক্তার হওয়ায় জান্নাতকে দেখার জন্য জেসি রায়ের কাছে পাঠিয়েছি। অপারেশনের করতে বলিনি।’ তিনি আরও বলেন, ডা. জে. সি রায় সার্জারিতে অভিজ্ঞ। তার সার্জারির উপর দুইটি ট্রেনিং আছে। আমার মনে হয় তার কারণে রোগী মারা যায়নি। অ্যানেসথেসিয়ার কারণে মারা যেতে পারে। ভোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবির বলেন, এ ব্যাপারে পুলিশের কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।