আজকের বার্তা | logo

২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৭ই আগস্ট, ২০১৮ ইং

কে জিতবেন রংপুর সিটিতে

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২১, ২০১৭, ১১:১৩

কে জিতবেন রংপুর সিটিতে

অনলাইন ডেক্সঃ আজ রংপুর সিটি করপোরেশনে ভোট। সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ চলবে। সুষ্ঠু-শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। ভোট উৎসবের জন্য প্রস্তুত ভোটাররাও। সবখানেই চলছে ভোটের হিসাব-নিকাশ। সবার মুখে একটাই কথা— কে জিতবেন রংপুর সিটিতে? এই সিটির দ্বিতীয় নির্বাচনে সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টুই কি থাকবেন মেয়রের চেয়ারে; নাকি সেই ধারায় ছেদ টেনে নগর ভবনে যাবেন অন্য কেউ। সিটির প্রায় ৪ লাখ ভোটার আজ সেই কাঙ্ক্ষিত ব্যক্তির ভাগ্য নির্ধারণ করবেন। এই নির্বাচনে মেয়র পদে সাতজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও আলোচনায় রয়েছেন তিনজন। এদিকে গতকাল ভোট কেন্দ্রে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী মালামাল পাঠিয়েছে ইসি। ভোট ঘিরে আশঙ্কার কিছু দেখছে না আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ভোটারদের জন্য চার স্তরের নিরাপত্তা বলয় থাকছে সিটি এলাকায়। একটি কেন্দ্রে ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) ও তিনটি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। নির্বাচনে নিরাপত্তা বাহিনীর সাড়ে ৫ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। রংপুর সিটিতে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত এই নির্বাচনে লড়াই হবে নৌকা-লাঙ্গল-ধানের শীষের। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঠিক এক বছর আগে এই নির্বাচনে রংপুরের ‘পুত্রবধূ’ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর নৌকা নাকি রংপুরে ‘ছাওয়াল’ এরশাদের লাঙ্গল জিতবে— তা দেখার অপেক্ষায় দেশবাসী। আবার এই দুই দলের প্রার্থীকে টেক্কা দিয়ে মাঠের বিরোধী দল বিএনপির ধানের শীষের বিজয় হলেও অবাক হওয়ার কিছুই নেই। নির্বাচনে জয়ের মালা যারই হোক, লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি, এমনটাই মনে করছেন বিশ্লেষকরা। এত দিন নির্দলীয় প্রার্থী হয়ে মেয়রের দায়িত্ব চালিয়ে আসা সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু এবার দলের নৌকায় উঠে তার উন্নয়নকাজ এগিয়ে নিতে ফের ভোট চেয়েছেন। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা জানিয়েছেন, টানা দুই মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার রংপুরে যে উন্নয়ন করেছে, নগরবাসী তার প্রতিদান দেবে। এ ছাড়া সদ্য বিদায়ী মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু যে উন্নয়ন করেছেন, তার ধারাবাহিকতার জন্য রংপুরবাসী নৌকাকেই বেছে নেবে। এ প্রসঙ্গে রংপুর সিটিতে আওয়ামী লীগের নির্বাচন সমন্বয়কের দায়িত্ব পালনকারী দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘রংপুরসহ দেশবাসী উন্নয়নের পক্ষে থাকতে চায়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে সর্বস্তরে সমানভাবে উন্নয়ন হয়, এটা প্রমাণিত। উন্নয়নের স্বার্থেই নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করবে। আমরা জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।’

অন্যদিকে গত নির্বাচনে ঝন্টুর কাছে পরাজিত হওয়া মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা এবার লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে এরশাদের ‘ইমেজ’ কাজে লাগিয়ে মুখ বদলের আহ্বান জানিয়েছেন। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, রংপুরের মাটি জাতীয় পার্টির ঘাঁটি। এ ছাড়া মোস্তফার ব্যক্তি ইমেজ ভালো। সে কারণে লাঙ্গলই বিজয়ী হবে। অন্যদিকে সরকারের জাঁতাকল থেকে ‘মুক্তির স্বপ্ন’ দেখিয়ে ভোট চাইছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা। গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে চার নম্বর অবস্থানে ছিলেন তিনি। এবার ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমে মূল লড়াইয়ের মধ্যে শরিক হয়েছেন। এই তিন হেভিওয়েট প্রার্থী ছাড়াও মেয়র পদে আরও চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রংপুর সিটিতে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ রয়েছে। এখন পর্যন্ত কোথাও বড় ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। নির্বাচনে বিজয়ী যেই হোন না কেন, পরিবেশ সুষ্ঠু ও সুন্দর থাকবে বলে আশা করছেন তারা।

কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে ব্যালট বাক্স ও ব্যালট পেপার : গতকাল ১৯৩টি ভোট কেন্দ্রের জন্য ব্যালট বাক্স ও ব্যালট পেপার বিতরণ করা হয়েছে। এ সময় রংপুর পুলিশ লাইনস মাঠে রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার, জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান, পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জি এম সাহাতাব উদ্দিন, আনসার ভিডিপির কমান্ডার আবদুস ছামাদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক পুলিশ ও আনসার সদস্যদের উদ্দেশে তার বক্তৃতায় বলেন, ‘নির্বাচনে দায়িত্ব পালনে আপনাদের কোনো শঙ্কা বা ভয় নেই। কারণ প্রতিটি কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ২২ থেকে ২৪ জন সদস্য দায়িত্বে থাকবেন। কোনো কেন্দ্রে সামান্য গোলযোগ দেখা দিলে ১ থেকে ৩ মিনিটের মধ্যেই বিজিবি ও র‌্যাবের টিম এবং ভ্রাম্যমাণ আদালত চলে যাবে।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের জনবলের কোনো ঘাটতি নেই। আমাদের কাজ হচ্ছে নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করা। আমরা শতভাগ তাদের সহায়তা করে যাব।’ এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, ‘দেশ-বিদেশের মানুষ তাকিয়ে আছে রংপুর সিটি নির্বাচনের দিকে। আপনাদের ওপর নির্ভর করছে আমাদের ভাবমূর্তি। আপনারা আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব নিরপেক্ষ ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করবেন। সবার সহযোগিতায় আমরা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেব।’

সুষ্ঠু নির্বাচনে সবার সহযোগিতা চাইলেন রিটার্নিং কর্মকর্তা : রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বচন সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহণযোগ্য করতে সবার সহযোগিতা চেয়েছেন রিটার্নিং অফিসার ও রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার। গতকাল সন্ধ্যায় তার সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভোট নিয়ে কথা বলেন তিনি। সুভাষ বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। নির্বাচনের পরিবেশ অনুকূলে রয়েছে। আমরা আশা করছি উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট সম্পন্ন হবে।’ রংপুর নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মোট ভোট কেন্দ্র ১৯৩টি। এর মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ ১০৮টি। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ২৪ জন পুলিশ ও আনসার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন। এর মধ্যে ১২ জনই থাকবেন অস্ত্রধারী। আর সাধারণ কেন্দ্রে ২২ জন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন। এ ছাড়া বিজিবির ২১ প্লাটুন এবং র‌্যাবের ৩৩টি টিম নির্বাচনী মাঠে থাকবে। ৩৩ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং ১১ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া সিটি করপোরেশন এলাকাকে চার ভাগে ভাগ করে চারজন ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে দায়িত্ব পালন করবেন পুলিশ সদস্যরা।

এক নজরে ভোট তথ্য : ২০১২ সালের ২৮ জুন রংপুর পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত করার পর দ্বিতীয় ভোট হচ্ছে এবার। ২০১২ সালের ২০ ডিসেম্বর প্রথম নির্বাচন নির্দলীয়ভাবে হলেও আজ মেয়র পদে ভোট হচ্ছে দলীয় প্রতীকে। রংপুর সিটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৮৯৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৯৬ হাজার ২৫৬ ও নারী ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন। ভোটকক্ষ ১ হাজার ১৭৮টি। ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা ৩ হাজার ৫৫৯ জন। ৩৩টি সাধারণ ও ১১টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। এক কেন্দ্রে ইভিএম : ১৯৩ কেন্দ্রের মধ্যে মাত্র একটি কেন্দ্রে ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) ব্যবহারের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। নগরের ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের ১৪১ নম্বর সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ কেন্দ্রের ভোটাররা ইভিএমে ভোট দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এই কেন্দ্রের ৬টি বুথে ইভিএমে ভোট দিতে পারবেন ২ হাজার ৫৯ জন ভোটার। ভোটারদের ইভিএমে ভোট দেওয়ার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। তবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা ইভিএম নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন।

৩ কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা : ১৯৩ কেন্দ্রের মধ্যে ১০৮টিকে ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ৩টি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। এগুলো হলো ২০ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ কেন্দ্র।

মেয়র প্রার্থীরা কে কোথায় ভোট দেবেন : রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সাত মেয়র প্রার্থীর মধ্যে তিন রাজনৈতিক দলের তিন হেভিওয়েট প্রার্থী আওয়ামী লীগের সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টুর সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নগরের সালেমা বালিকা উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার কথা রয়েছে। অন্যদিকে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা নগরের আলমনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল সাড়ে ৯টায় ভোট দেবেন। বিএনপির কাওসার জামান বাবলা সকাল ১০টায় ভোট দেবেন দেওয়ানটুলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। অন্য চার মেয়র প্রার্থীর তাদের নিজ নিজ কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার কথা রয়েছে।

এরশাদ যেখানে ভোট দেবেন : রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নগরের সেনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বেলা ১১টার দিকে ভোট দেওয়ার কথা রয়েছে। তিনি ভোট দেওয়ার জন্য পাঁচ দিনের সফরে সোমবার রংপুরে আসেন। পল্লীনিবাসের বাসায় থেকে তিনি দলীয় প্রার্থীর নির্বাচন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। অন্যদিকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গার গুপ্তপাড়া সালমা উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার কথা রয়েছে।

আচরণবিধি লঙ্ঘনে ২৭ প্রার্থীর অর্থদণ্ড : আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরুর পর থেকে মঙ্গলবার প্রচারণার শেষ দিন পর্যন্ত আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে তিন মেয়র ও ২৪ কাউন্সিলর প্রার্থীকে অর্থদণ্ড করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু রাফা মো. আরিফ জানান, আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে ৬টি, আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে ৭টি ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে ৩টি অভিযোগে অর্থদণ্ড করা হয়। এ ছাড়া ২৪ জন কাউন্সিলর প্রার্থীকে আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে অর্থদণ্ড করা হয়েছে।

র‌্যাবের অধিনায়ক যা বললেন : র‌্যাব-১৩ রংপুরের অধিনায়ক এ টি এম আতিকুল্লাহ জানান, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট অনুষ্ঠানে র?্যাবের ৩৩টিম (৪০০ জন) মাঠে দায়িত্ব পালন করবে। এ ছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ডগ স্কোয়াড ও বোম ডিসপোজাল ব্যবস্থা থাকবে।

রংপুরে লাঙ্গলের বিপ্লব হবে : জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি বলেছেন, ‘পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু এইচ এম এরশাদ বর্তমানে রংপুরে তার নিজ বাসভবনে অবস্থান করছেন। পাঁচ দিন ধরে আমি রংপুরের হাজার হাজার নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় করেছি।

তারা আমাকে জানিয়েছেন (আজ) রংপুরে ’৯১ সালের মতো লাঙ্গলের পক্ষে ভোটবিপ্লব হবে। কোনো চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র করে লাঙ্গলের বিজয় ঠেকানো যাবে না।’

গতকাল রংপুর শহরের অদূরে মিঠাপুকুর উপজেলায় জাতীয় পার্টির স্থানীয় এক নেতার বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় এ কথা বলেন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, ইয়াহিয়া চৌধুরী এমপি, আমির হোসেন এমপিসহ দলের শীর্ষ নেতারা। রুহুল আমিন হাওলাদার আরও বলেন, ‘রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে জাতীয় পার্টি। রংপুরের লাখ লাখ মানুষ জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফাকে লাঙ্গল মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয় উৎসবের জন্য অপেক্ষায় রয়েছে।’

রংপুর সিটি নির্বাচন ইসির অগ্নিপরীক্ষা : পীর চরমোনাই ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম বলেছেন, ‘রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন নির্বাচন কমিশনের জন্য অগ্নিপরীক্ষা। এ নির্বাচনে নিরপেক্ষতার স্বাক্ষর রাখতে পারলে ইসির গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে সৃষ্ট প্রশ্ন অনেকাংশে কেটে যাবে। নইলে পক্ষপাতদোষে দোষী হিসেবে সাব্যস্ত হবে।’ গতকাল এক বিবৃতিতে পীর চরমোনাই আরও বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের রংপুর সিটি নির্বাচন দেশবাসী গভীর আগ্রহে পর্যবেক্ষণ করছে।’ তিনি রংপুর সিটি নির্বাচনে এ টি এম গোলাম মোস্তফা বাবুকে হাতপাখায় ভোট দিয়ে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় এগিয়ে আসার জন্য রসিকবাসীর প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাস ও কালো টাকার মালিকদের বয়কট করে যোগ্য ও আল্লাহভীরু নেতৃত নির্বাচিত করতে হাতপাখাকে নির্বাচিত করার বিকল্প নেই।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।