আজকের বার্তা | logo

৯ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং

উজিরপুরে দলিল লেখকদের দুর্নীতি ও অনিয়ম: রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭, ০১:৩৩

উজিরপুরে দলিল লেখকদের দুর্নীতি ও অনিয়ম: রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

উজিরপুর প্রতিনিধি ॥ উজিরপুরে সাব রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল লেখকদের সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে দিন দিন কমে যাচ্ছে জমি ক্রয়-বিক্রয়ের সংখ্যা। আর সরকার হারাচ্ছে লাখ লাখ টাকা রাজস্ব। প্রতিবাদ করলে উপজেলা মুহুরি সমিতির নির্দেশে মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। বিভিন্ন এলাকা অনুসন্ধান করে জানা যায়, উপজেলা মুহুরি সমিতির সভাপতি জামাল হোসেন, সম্পাদক লিয়াকত আলীর সমন্বয়ে গঠিত সিন্ডিকেটের কারণে জমি ক্রয়কারী ব্যক্তি একবারই জমি ক্রয় করে হয়রানির শিকার হয়ে আর জমি ক্রয় করতে সাহস পান না। জমি গ্রহীতাকে গুনতে হয় প্রতি লাখে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। এমনকী জমি সাব-কবলা দলিল রেজিস্ট্রি হওয়ার পূর্বেই দলিল লেখকদের হাতে গুনে দিতে হয় সমুদয় টাকা। টাকা দেওয়ার পরে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার কথা বলে জমি গ্রহীতাকে প্রতারণার মাধ্যমে হেবা দলিল, অছিয়তনামা দলিল, দানপত্র ও আমমোক্তার দলিল করিয়ে দেওয়া হয়। যা থেকে সরকার তেমন কোন রাজস্ব পায় না। এমনকী প্রতারক সিন্ডিকেট চক্রের মাধ্যমে নকল সিল-মোহরে পর্চা দাখিল করা হচ্ছে। সুস্থ সবল মানুষদের অসুস্থ দেখিয়ে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে নামমাত্র ফি দিয়ে অজ্ঞাত স্থানে কমিশন দলিল রেজিস্ট্রি করিয়ে দেয়া হচ্ছে। এমনকী সরকারি আইনকে উপো করে সাবরেজিস্ট্রারকে ভুল বুঝিয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন ও প্রতিবন্ধীদের জমির দলিলের কাজ সম্পাদন করা হয়। মাঝে মধ্যে দলিল লেখকদের মাধ্যমে জাল স্টাম্প ও রেভিনিউ পাওয়া যায়। সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হচ্ছে, সাবরেজিস্ট্রার উজিরপুরে যোগদানের সাথেসাথে মুহুরি সমিতির সভাপতি- সম্পাদকের মাধ্যমে অবৈধ গোপন চুক্তি সম্পাদিত হয়। সাব-রেজিস্ট্রারকে বাধ্য করা হয় মুহুরিদের দুর্নীতি ও অনিয়মের চুক্তি মানতে। কোন দলিলে ওয়ারিশরা অভিযোগ উত্থাপন করলে সুযোগ গ্রহণ করেন দলিল লেখকরা। গত মঙ্গলবার গুঠিয়া ইউনিয়নের দোসতিনা গ্রামের নিঃসন্তান ফজলুল হক তালুকদারকে তার পালিত ছেলের পুত্র ভয়ভীতি দেখিয়ে উপজেলা মুহুরি সমিতির সভাপতি জামাল হোসেন এর কাছে দলিল রেজিস্ট্রি করতে আসলে ওই সম্পত্তির ওয়ারিশ আ’লীগ নেতা মন্টু ডাকুয়া উভয় পকে ডেকে ওয়ারিশদের সাথে আলোচনা করে দলিল রেজিস্ট্রি করার অনুরোধ জানান এবং সাবরেজিস্ট্রারকেও অবহিত করেন। সুযোগটি গ্রহণ করে জামাল ৬০ হাজার টাকা চুক্তির মাধ্যমে বৃহস্পতিবার গোপনে ওই দলিল রেজিস্ট্রি করার চেষ্টা করেন। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় আ’লীগ নেতারা পুনঃরায় অনুরোধ করলে প্তি হয়ে দলিল লেখকরা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে পূর্ব শত্রুতার রেশ ধরে ঘটনাস্থলে অনুপস্থিত ব্যক্তিদের নাম উল্লেখ করে আ’লীগ নেতা সহদেব দাস, কামরুল ফকির, সত্যজিৎ, ইব্রাহীম, ফিরোজ, কামাল, মনির বালী, পরিমল শীল’র বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এ নিয়ে  রাজনৈতিক মহলে চরম ােভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে জাহাঙ্গির হোসেন, মালেকা বেগম, আয়নালী হাং, জোসনা বেগম, শহিদুল ইসলাম জানান, দলিল করতে আসলে মুহুরিরা সই-মোহর ও পর্চার কথা বলে ৪ হাজার টাকা বিভিন্ন ফি বাবদ লাখ প্রতি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন। এলাকাবাসী দলিল লেখকদের হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে প্রশাসনসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপরে সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।